হোম / অন্যান্য / মধু কেন খাবেন? কিভাবে খাবেন? কি কি উপকারে আসে
13754153_1742585789342881_54639525760427701_n

মধু কেন খাবেন? কিভাবে খাবেন? কি কি উপকারে আসে

লাইফস্টাইল প্রতিবেদকঃ  মধু কেন খাবেন? কিভাবে খাবেন?
.
সুস্থ থাকতে মধুর বিকল্প নেই। এক কথায় বলতে গেলে, নানা গুণের অধিকারী এই মধু মানুষের দীর্ঘ জীবন দেয়।
.
আসুন এই মধু কি কি উপকারে আসে জেনে নেই:
.
# চায়ের সঙ্গে মধু ও আদার রস মিশিয়ে খেলে সর্দি ও শ্লেস্মা রোগের উপশম হয়।
.
# মধুর সঙ্গে গুড়ের রস মিশিয়ে খেলে বমি বন্ধ হয়ে যায়।
.
# শরীরের বাইরের কোন অংশের ক্ষততে মধুর প্রলেপ লাগালে অনেক সময় মলমের চেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যায়।
.
# হাঁপানির মৃদু আক্রমণ এবং শ্বাসের অল্পতায় অনেক সময় মধু শুকলে উপকার পাওয়া যায়।
.
# পানির সঙ্গে অল্প মধু মিশিয়ে খেলে পাকস্থলির ক্ষত সারে।
.
# পানিসহ মধুর কুলকুচি করলে গায়কদের গলার স্বর বৃদ্ধি পায় এবং অনেকের মতে এটা টনিকের মতো কাজ করে।
.
# এক কাপ দুধে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে খেলে শক্তি বৃদ্ধি পায়।
.
# চোখের অসুখেও মধু অনেক উপকার দেয়।
.
# গরম পানির সঙ্গে মধুর কুলকুচি করলে গলগণ্ড রোগের উপকার হয়।
.
# শিশু ও বৃদ্ধদের পক্ষে আদর্শ শক্তিশালী আহার হলো মধু।
.
# মৌরির পানির সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেলে শাক-সবজির গ্যাস বা দূষিত বায়ু বেরিয়ে যায়।
.
# মেদ রোগে অর্থাৎ যারা খুব মোটা হয়ে যাচ্ছেন তাদের রোগা করবার জন্য বা মেদ কমিয়ে দেওয়ার জন্য মধুর অল্প পানি মিশিয়ে খেলে সুফল পাওয়া যায়।
.
# দুর্বল শিশুকে দু-এক ফোটা মধু দুধের সঙ্গে মিশিয়ে দিনে দু’বার খাওয়ালে তার স্বাস্থ্য ভালো হয় ও শক্তি লাভ করে।
.
# আদার রস আর মধু এক চা চামচ এক সঙ্গে মিশিয়ে সকালে ও সন্ধেবেলা খেলে সর্দি সেরে যায় ও খিদে পায়।
.
# টাটকা মাখনের সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেলে ক্ষয় রোগি উপকার পাবেন।
.
# দুই চা চামচ পাতি লেবুর রসের সঙ্গে এক চা চামচ দুধ মিশিয়ে খেলে ব্লাড প্রেসারে যারা ভুগছেন তাদের উচ্চ রক্তচাপ কমবে।
.
# মধুর সঙ্গে পানি মিশিয়ে কুলকুচি (গার্গিল) করলে যাদের টনসিল বেড়ে গেছে তারা উপকার পাবেন।
.
# পানি আর মধু একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে কিছুক্ষণ পর কুলি- করলে মুখ স্বচ্ছ হয় অর্থাৎ মুখে একটা তাজা ভাব আসে। মুখের ঘা সারে দাহ-পিপাসা ইত্যাদি দূর হয়।
.
# প্রতিদিন সকালে দুই চা চামচ মধু ঠাণ্ডা পানিতে মিশিয়ে চার-পাঁচ মাস ধরে খেলে চুলকানি, ফুসকুড়ি, ব্রণ প্রভৃতি ত্বকের রোগ একেবারে মূল থেকে নির্মূল হয়।
.
# পাতলা পরিষ্কার কাপড় মধুতে ভিজিয়ে শরীরের পুড়ে যাওয়া অংশে রাখলে একটু স্বস্তি পাওয়া যায়।
.
# সকালবেলা এক কাপ গরম বা ঠাণ্ডা পানিতে এক চা চামচ এবং রাত্রিতে দুধের সঙ্গে মিশিয়ে এক চা চামচ মধু খেলে অজীর্ণতা ও কোষ্ঠ্যবদ্ধতা দূর হয়ে যায়।
.
এভাবে মধুর অজস্র উপকারিতা রয়েছে। আবার বৈজ্ঞানিক মত অনুসারে মধু সহজে হজম হয়, অত্যন্ত হালকা, শরীরের দাহের শান্তি করে, উত্তেজক, শোষক, বলদায়ক ও হৃদ্য অর্থাৎ হৃৎপিণ্ডের পক্ষে খুবই উপকারী। নানারকম অসুখ সারাবার এবং অসুখের বিরুদ্ধে প্রতিরোধক শক্তি গড়ে তোলার ক্ষমতা রাখে মধু।,

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *